কাঁদি একা রাই গো সখি, কালনিশি জাগিয়া

কাঁদি একা রাই গো সখি, কালনিশি জাগিয়া
আইল না শ্যাম, কার কুঞ্জেতে আছে লুকি দিয়া গো।।

প্রথম প্রহর রাত্রি গো সখি, যখন গেল হইয়া
ললিতা বিশখা সখি বনফুল তুলিয়া গো।।

বনফুলে গাঁথা মালা গো, সখি আদর করিয়া
মনের সাধে বন্ধের গলে, দিতাম হার পরাইয়া গো।।

দ্বিতীয় প্রহর গেল সখি, আশার পথে চাইয়া
ওই আসবে ওই আসবে, আমার শ্যামনগর কালিয়া গো।।

তৃতীয় প্রহর গেল গো সখি, মলিন ভাব ধরিয়া
চতুর্থ প্রহরে কোকিল ডাকে, ডালে বইয়া গো।।

কুহু কুহু ডাক শুনিয়া গো সখি প্রাণ উঠে কাঁদিয়া
অসময়ে কাল কোকিল ডাকে কী সুখ পাইয়া গো।

যাও রে কোকিল কইও শ্যামরে, তোমার রাই গেল মরিয়া
সে যেন না দোষে গেলে কলঙ্ক নাম রইয়া গো।।

দুর্বিন শাহ কয় আর দেরি নাই গো সখি, নিশি গেল বইয়া
শয্যাগত হইল দেহ, প্রাণ যাবে ছাড়িয়া গো।।

(রাইবিচ্ছেদ)