কাঁদি যার কারণে গো সখি তারে পাই কেমনে

কাঁদি যার কারণে গো সখি তারে পাই কেমনে
দুই চক্ষু হইয়াছে অন্ধ নিশি জাগরণে গো।।

কালবৈশাখের মেঘের আঁধার গো সখি উঠিল গগনে
নতুন প্রেম দিলো দাগা সহে না পরানে গো।।

আইল জ্যৈষ্ঠ ঘন বৃষ্টি পড়ে গো সখি যেখানে সেখানে
প্রেমের আগুন জ্বলছে দ্বিগুণ ঘন বরিষনে গো।।

বারিষারি কাল আষাঢ় গো সখি আসিল সামনে
ঘরে নাই শ্যাম প্রেমখেলা খেলব কার সনে গো।।

যৌবন সময় যায় স্বামী নাই গো বলো বাঁচিবে কেমনে
বারিষা হইবে চঞ্চল দুরন্ত শ্রাবণে গো।।

ভাদ্র মাসে আসার আশে গো সখি থাকি নিশিদিনে
সোনার যৌবন কাল হইয়াছে বন্ধুয়া বিহনে গো।।

বারিষা মোর শেষ হইয়া যায় গো সখি দারুণ আশ্বিনে
আর কতদিন সোনার যৌবন রাখিব যতনে গো।।

কার্তিক মাসে পড়ল ভাটা গো সখি আমার যৌবনে
দুর্বিন শাহ কয় আর দেরি নাই কবে যাই শুশানে গো।।

(বারোমাসি)