স্টেজ

নাচো, নাচো, হে নর্তকী, এই বক্ষে, এই স্টেজে, নাচো চিরদিন
বাজাও নুপূর ঘন, আবর্তিত হও, শব্দ তােল উদ্ভিদবিদার,
পায়ের আঘাত হােক রক্তবীথি ছিন্নভিন্ন, মাংসরা মলিন,
নাচো, নাচো, হে নর্তকী, এই বক্ষ, এই স্টেজ সর্বদা তােমার।

চূর্ণ করাে এই বক্ষ, জীর্ণ করাে হৃৎপিণ্ড, পাঁজর,
চিকার ক্রন্দন ক’রে অস্থিপুঞ্জ, রক্তমাংস, সর্বাঙ্গ বাজুক;
তােমার ঘূর্ণিতে ভাঙে চিরকাল গ’ড়ে যাওয়া ঘর
বেদনা রিক্ততা মেখে বেহিশেবি রক্তরা সাজুক।

চোখ থেকে আলাে দেবাে, বিচ্ছুরিত বর্ণের বৈভব
উঠবে বেয়ে সারাদেহ, পদতল, গাঢ়বক্ষ, কৃষ্ণকেশপাশ,
প্রেক্ষাগারে করতালি, হর্ষধ্বনি, নিবেদিত স্তব
সবই তােমার প্রাপ্য: সারাগৃহে উল্লাস… উল্লাস…

নাচো, নাচো, হে নর্তকী, এই বক্ষে, এই স্টেজে, নাচো চিরদিন,
তােমার সৌন্দর্য সব দর্শকের, স্টেজের ভাগ্যে থাক বিষ,
তবুও সে অভিযােগ তুলবে না, একবিন্দু, তৃণসম ক্ষীণ,
স্টেজের কাম্য শুধু পদাঘাত- হাহাকার, বিষ অহর্ণিশ।