জোনাকী

অসংখ্য সবুজ শিমে শিমলতা পাতা ভ’রে আছে;
শিম পাড়ি;— মেয়েটিও আছে কাছে-কাছে;
চার বছরের ছোটো মেয়ে;
কাপছিলো হিমে;
আঁচল ফেলেছে ভ’রে শিমে
জায়গা নেই যে এক তিল,
তবু সে বাড়াল হাত— তারপর থেমে গিয়ে নিজ মনে বললে, ‘কেমন নীল—

কেমন সুন্দর নীল শিমগুলো—
ঐ শিমগুলো, বাবা, গাছেই থাকুক।’
নদীর মতন টলমল চোখে তাকাল সে— তারপর মুখ
নামিয়ে সে চ’লে গেলো—

বেলা শেষ হ’লে
শুনলাম ডুবে গেছে পুকুরের জলে।
অনেক গভীর রাতে দ্যাখা গেলো জোনাকি-পোকার সাথে নক্ষত্রের তলে
শিমগুলো খেলা করে শিশিরের জলে;
আমাকে দাঁড়াতে দ্যাখে বলে তারা: ‘বুঝেছ তো কে এই জোনাকী?
‘চিনেছ?’ বললে রাতের লক্ষ্মীপাখি।

[কবিতা। আশ্বিন ১৩৬৩]