আমার মা যে গোপাল-সুন্দরী

আমার মা যে গোপাল-সুন্দরী।
যেন এক বৃন্তে কৃষ্ণ-কলি অপরাজিতার মঞ্জরি।।

মা আধেক পুরুষ অর্ধ অঙ্গে নারী
আধেক কালি আধেক বংশীধারী,
অর্ধ অঙ্গে পীতাম্বর আর অর্ধ অঙ্গে দিগম্বরী।।

মা সেই পায়ে প্রেম-কুসুম ফোটায় নূপুর-পরা যে চরণ,
মা’র সেই পায়ে রয় সর্প-বলয় যে পায়ে প্রলয়- মরণ।
মার আধ-ললাটে অগ্নি-তিলক জ্বলে
চন্দ্রলেখা আধেক ললাট তলে,
শক্তিতে আর ভক্তিতে মা আছেন যুগল রূপ ধরি’।।