আগুন জ্বালাতে আসিনি গো আমি

আগুন জ্বালাতে আসিনি গো আমি
এসেছি দেয়ালি জ্বালাতে
শুধু ক্রন্দন হয়ে আসিনি,
এসেছি চন্দন হতে থালাতে॥

ধরায় আবার আসিয়াছি প্রিয়া
তব মুখখানি দেখিব বলিয়া,
তাই প্রদীপ হইয়া নীরবে পুড়ি গো
তোমারই বরণডালাতে॥

তব মিলন-বাসরে ঘুম ভাঙাইতে আসিনি
তুমি কেন লাজে ওঠো আকুলি?
তব রাঙা মুখখানি রাঙাইয়া যাব চলে গো
আমি সাঁঝের ক্ষণিক গোধূলী॥

তব কাজল নয়ন-পল্লব ছায়ে
অশ্রুর মত রহিব লুকায়ে,
ঝরিতে এসেছি ফুল হয়ে আমি
তোমার বুকের মালাতে॥

(বনগীতি গ্রন্থের দ্বিতীয় খণ্ড হতে সংগৃহীত)