পদ্মদীঘির ধারে ঐ

পদ্মদীঘির ধারে ঐ
সখি লো কমল-দীঘির ধারে।
আমি জল নিতে যাই
সকাল সাঁঝে সই,
সখি, ছল করে সে মাছ ধরে
আর চায় সে বারে বারে।।

মাছ ধরে সে, বঁড়শী আমার
বুকে এসে বেঁধে,
ওলো সই বুকে এসে বেঁধে,
আর চোখের জল কলসি আমার সই
আমি ভরাই কেঁদে কেঁদে
সই যত দেখি তারে।।

ছিপ নিয়ে যায় মাছ জলে তার
তাকায় না তার পানে,
মন ধরে না- মীন ধরে সে
সখি লো সেই জানে।
মন-ভিখারি মীন-শিকারি
মুখের পানে চায়,
সখি লো চোখের পানে চায়,
আমি বঁড়শী-বেঁধা মাছের মত গো
সখি ছুটিয়া মরি হায় অকূল পাথারে।।

[গ্রাম্য সঙ্গীত]


(বনগীতি গ্রন্থের প্রথম খণ্ড হতে সংগৃহীত)