দ্বিজেন্দ্র-বিয়ােগে

সমুদ্রমন্থনদিনে দেবাসুরে নিল ভাগ করি
সিন্ধুর যা-কিছু রত্ন; বেলাভূমে ছিল সেথা পড়ি
একখানি শুক্তি শুধু; বিধাতা দিলেন তাহা নরে—
হাসি-অশ্রু যুগ-মুক্তা গাঁথা যার গােপন গহ্বরে।
ছল-ছল স্বচ্ছশােভা অশ্রুমুক্তা স্বভাব-কোমল—
মানবের চক্ষে-চক্ষে ফিরিতে লাগিল ভূমণ্ডল;
হাস্য ছিল সঙ্গোপনে—ঢল-ঢল লাবণ্যসম্ভার!
তুমি কবি, আহরিয়া সুদূর্লভ সেই উপহার,
সমর্পিলে মহা হর্ষে মর্তবাসী আর্তজন লাগি—
হাসিল তমসাতীরে অকলুষা উষা যেন জাগি;
সাহিত্যের কুঞ্জে-কুঞ্জে কণ্টকে ফুটিল পুষ্পরাশি—
বঙ্গবাসী প্রাণ পেল হাসি সেই বঙ্গভরা হাসি!

কিন্তু হায়! কে মুছিবে নিয়তির অব্যর্থ লিখন—
দরিদ্র বাঙালি-ভাগ্যে আনন্দ যে ঐশ্বর্য-স্বপন!
তাই আজি বঙ্গাকাশে সহসা নিবিল ধ্রুবতারা,
আনন্দের পূর্ণচন্দ্র অকস্মাৎ হল জ্যোতিহারা;
বসন্তে জাগায়ে দিয়া কোকিল কোথায় গেল চলি
‘গৃহস্থের খোকা হােক’—কাঁদিল সে ‘চোখ গেল’ বলি!
এ যেন কৌতুক-নাট্যে প্রথমাঙ্কে যবনিকা টানি
নিবাইল দীপালােক শুনাইল অস্তিমের বাণী!
রঙ্গরসে সারা বঙ্গ মাতাইয়া যেন অর্ধপথে—
বঙ্গ-বৃন্দাবন-চন্দ্র আরােহিলা অক্রূরের রথে।
যে দিয়াছে এত সুখ—সেও এত দুঃখ দিতে জানে—
হায়রে দুর্ভাগা দেশ! আনন্দ কি সহে তাের প্রাণে!

ঐ শােন, লক্ষ কন্ঠ তােমারে ডাকিছে ফিরে আজি—
ঐ দেখ, লক্ষ চক্ষু বরষিছে তপ্ত অরাজি!
আপনি স্বদেশ-লক্ষ্মী—হের, আজি শূন্য কোল নিয়া,
কবিবর, তােমাপানে অশ্রুনেত্রে আছেন চাহিয়া!
এরি মাঝে মর্ত্যে তব কর্তব্যের হইল কি শেষ?
‘সকল দেশের রানী’ আজিও যে চিনিল না দেশ!
‘স্বর্গ আমার’ বলি—গর্বভরে ডাকে কয় জন—
‘মানুষ হবার লাগি’ গৃহে-গৃহে কই আয়ােজন?
শিখিয়া বিলাতি বুলি, বাংলা ভুলিতে আজো সাধ,
গণ্ডমূর্খ ‘চণ্ডী’ করে লণ্ডভণ্ড হিন্দুধর্মবাদ!
এখনাে এ দগ্ধদেশে ছদ্মবেশে ফিরে ‘নন্দলাল’—
ফিরে এস, ফিরে এস—সাহিত্যের আনন্দ-দুলাল!
শতাব্দীর দুঃখদৈন্য জর্জরিত যাহার হৃদয়,
হাস্য যে অমৃত তার—অবসন্ন আত্মার অভয়!
তুমি সেই অমৃতের কবি, ঋষি, মহাপ্রচারক,
দেশভক্ত মহাকর্মী, জননীর অক্লান্ত সাধক;
তুমি শুধু কবি নই, কবিরাজ তুমি ধন্বন্তরি—
মুমূর্ষ বাঙালিদেহে তুমি দিলে জীবনী সঞ্চরি
সঞ্জীবনী হাস্যমন্ত্রে; পাংশুমুখে ফুটি উঠে হাসি,
উঠি বসে শীর্ণ রােগী—গৃহে বাজে আনন্দের বাঁশি।
কিন্তু কবি, অসমাপ্ত রয়ে গেল সমারব্ধ কাজ—
‘এমন চাদের আলাে, মরি যদি’—তাই সত্য আজ!
যাও তবে কবিবর, ‘সুরধামে’—’মহাসিন্ধুপারে’;
তােমারি অমৃত-গীতি শান্তি দিক আজি সবাকারে।