সংবর্ধনা-সভায়

দূরে থেকে, কাছে থেকে—যারা মােরে বাসিয়াছে ভালাে
যারা এই চিত্তপুরে জ্বলিয়াছে প্রদীপের আলাে
স্নেহের দক্ষিণ দানে, উপেক্ষিয়া অক্ষমতা তার,
কম্পিত শিখার স্পর্শে তাদের জানাই নমস্কার
আজিকার এই আরাত্রিকে; ধূমাঙ্কিত মসীরেখা
যদি পড়ে থাকে দীপে, সে তাহার ললাটেরই লেখা।
চঞ্চল চপল বায়ু, বুঝিয়া বা না-বুঝিয়া হােক—
যদি কোনাে দিন সেই অতি শীর্ণ দীপের আলােক
নিবাইতে চেয়ে থাকে, প্রদীপ্তির অপরাধ-জ্ঞানে,
তারে প্রয়ােজন মানি শিখামুখে সশ্রদ্ধ সম্মানে।
প্রসন্নতা যাচি তারই—জানাই বিনীত নমস্কার;
শুধু স্নেহে নহে জানি, বায়ুস্পর্শে জীবন যে তার।
এ দীপ মাটিরই দীপ, চিরদীপ্ত সূর্যচন্দ্র নয়;—
গৃহেরই পরিধি মাঝে সীমাবদ্ধ তার পরিচয়;
স্নিগ্ধ পরিজন-মুখে একান্তে ঘনায়ে তুলি ছায়া,
বান্ধবজনের চোখে এ যে গাে মেলিতে চাহে মায়া!
বেপথু অন্তর নিয়ে নব-বধূ যদি সে আলােকে
স্বামীর সােহাগচিহ্ন পরি লয় স্নিগ্ধ কালাে চোখে,
দরিদ্র চরখা কাটে, তরুণীরা পড়ে রামায়ণ,
একান্ত নিষ্ঠায় যদি গৃহী স্মরে নিত্য নারায়ণ
গৃহ-তুলসীর মূলে, পূজার কাঁসর ঘণ্টা বাজে,
শঙ্খের উদার স্বরে শিহরি সে মরি যায় লাজে ।
অঙ্গনের আশে-পাশে যদি-বা সঙ্কোচ শঙ্কা মানি
কভু সে মেলিয়া থাকে কুষ্ঠিত কাতর দৃষ্টিখানি,
আপনারে লয়ে সে যে আপনি মরিতে চাহে নিবে
কী জানি, কোথায় কেবা প্রগলভের অপরাধ দিবে!
—দিতে চেয়েছিল যাহা—পারিলাম, নাহি পারিলাম,
দীপের জীবন-রাত্রে, বুঝিয়াছি, অতীত ত্রিযাম।
শীত-পাণ্ডু প্রতিভায়, ক্লান্তিহরা আ-শীত বাতাসে
মনে হয়, যাত্রাশেষী রাত্রি তার ভাের হয়ে আসে
এবারের মতাে! ধূসর পূর্বাশা-তীরে অতি ধীরে
এখনি উদিবে উষা জ্যোতির্ভাণ্ড বহি দীপ্ত শিরে;
তারই হাতে দিয়ে যেতে পারি যদি এই ক্লান্ত আলাে,
ভাবিব, বাঁচিনু আমি—ভাবিব যে ভাগ্য মাের ভালাে!