ছোট্ট একটা নেংটি ইদুঁর

বনের ধারে একটা মাদার গাছের নিচে একটা গর্তে থাকতো ছোট্ট একটা নেংটি ইদুঁর তার মা বাবা আর ভাই বোনদের নিয়ে। সে ছিলো ছোট্ট, একটুখানি, তার কান দুটো ছিল বড় আর লেজটা ছিল লম্বা, গোলাপী রংয়ের।
ছোট্ট নেংটি ইদুঁরের ভাই বোনেরা সবসময় তাকে নিয়ে ঠাট্টা করতো। তারা বলতো:

ছোট্ট নেংটির মস্ত বড় লেজ
দেখি দেখি তার কত্তোখানি তেজ

তারপর তারা তার লেজ ধরে দিতো হ্যাচকা টান। ছোট্ট সেই নেংটি ইদুঁর তখন রেগে মেগে বলতো, “ভালো হবে না কিন্তু। আমাকে রাগিয়ে দিও না—তাহলে দেখো আমি কি করি।”
“তুমি তাহলে কী করবে ছোট্ট নেংটি?”
“আমি যা ইচ্ছা তাই করতে পারি।”
তার ভাই বোনেরা তখন বলতো, “সত্যি?”
“হ্যাঁ সত্যি।”
“তাহলে তুমি একটা হাতিকে ধরে আনো দেখি।”
ছোট্ট নেংটি ইদুঁর কখনো হাতি দেখেনি, তাই সে ভাবল, এটা আর এমন কী কঠিন? তাই সে বলল, “ধরে তো আনতেই পারি! তোমরা ভেবেছ কী, পারব না?”
ছোট্ট নেংটি ইদুঁরের কথা শুনে তার ভাই বোনেরা পেটে হাত দিয়ে হাসিতে গড়াগড়ি খেতে শুরু করতো। এরপর থেকে তারা ছোট্ট নেংটি ইদুঁরকে দেখলেই বলতো:

ছোট্ট নেংটির বিশাল বুকের ছাতি
একদিন সে ধরে আনবে মস্ত বড় হাতি।

ভাই বোনদের ঠাট্টা শুনতে শুনতে ছোট্ট নেংটি ইদুঁর একেবারে ত্যক্ত বিরক্ত হয়ে গেল। তাই সে একদিন চিকন একটা দড়ি নিয়ে বের হলো হাতি ধরে আনার জন্য।
প্রথমেই দেখা হলো তার একটা ব্যঙের সাথে। ব্যঙকে ছোট্ট নেংটি ইদুঁর জিজ্ঞেস করল, “তুমি কী হাতি?”
ব্যঙ বলল, “না, না, আমি হাতি না! আমি ব্যঙ।”
ছোট্ট নেংটি বলল, “আমি যাচ্ছি একটা হাতি ধরে আনার জন্য।”
ব্যঙ তখন পেটে হাত দিয়ে খিক খিক করে হাসতে হাসতে সবাইকে ডেকে বলল, “দেখো তোমরা সবাই এসে দেখো! আমাদের ছোট্ট নেংটি ইদুঁর একটা হাতি ধরে আনতে যাচ্ছে!”
সবাই তখন হি হি করে হাসতে হাসতে গড়াগড়ি খেতে লাগল।
ছোট্ট নেংটি ইদুঁর কারো কথা না শুনে হন হন করে হেঁটে যেতে লাগল। পথে তার খরগোসের সাথে দেখা হলো, কাঠবিড়ালীর সাথে দেখা হলো, বেজীর সাথে দেখা হলো, বানরের সাথে দেখা হলো—সবাইকে সে জিজ্ঞেস করল, “তুমি কী হাতি?”
সবাই বলল, যে তারা হাতি না। হাতি হবে অনেক বড়, তার কান হবে কুলার মত, পা হবে থাম্বার মত আর শুঁড় হবে অনেক লম্বা।
খুঁজতে খুঁজতে ছোট নেংটি ইদুঁর শেষ পর্যন্ত হাতিকে পেয়ে গেল। সে তখন তার চিকন গলায় জিজ্ঞেস করল, “তুমি নিশ্চয়ই হাতি। তাই না?”
হাতি বিশাল একটা কলাগাছ খেতে খেতে বলল, “হ্যাঁ, আমি হাতি।”
ছোট্ট নেংটি ইদুঁর বলল, “আমি তোমাকে ধরে নিয়ে যেতে এসেছি।”
হাতি বলল, “তাই নাকি?”
নেংটি ইদুঁর বলল, “হ্যাঁ। এই দেখো আমি দড়ি নিয়ে এসেছি।”
“দড়ি দিয়ে তুমি কী করবে?”
“তোমাকে বেঁধে ফেলব। তারপর টেনে টেনে নিয়ে যাব।”
হাতি নেংটি ইদুঁরের কথা শুনে দুলে দুলে হাসতে লাগলো। তারপর শুঁড় দিয়ে খপ করে একটা ফড়িং ধরে ছোট্ট নেংটি ইদুঁরকে দিয়ে বলল, “তার চাইতে তুমি এই ফড়িংটা ধরে নিয়ে যাও।”
নেংটি ইদুঁর তখন ভ্যাঁ করে কেঁদে দিল। হাতি জিজ্ঞেস করল, “কী হল? তুমি কাঁদছ কেন?”
ছোট্ট নেংটি ইদুঁর বলল, “আমি ছোট্ট সেই জন্যে সবাই আমাকে নিয়ে ঠাট্টা করে। আমি যদি তোমাকে ধরে নিয়ে যেতে না পারি তাহলে সবাই আমাকে নিয়ে আরো বেশী ঠাট্টা করবে।”
হাতির তখন ছোট্ট নেংটি ইদুঁরের জন্য মায়া হলো। তখন সে বলল, “ঠিক আছে। তাহলে তুমি আমাকে ধরে নিয়ে যাও।”
ছোট্ট নেংটি ইদুঁর তখন তার দড়ি দিয়ে হাতির শুঁড়টা বেধে ফেলার চেষ্টা করল। কেমন করে গিট দিতে হয় সে জানত নাই। তাই হাতি তাকে সাহায্য করল। তারপর সে হাতিকে টেনে টেনে নিয়ে যেতে থাকল। ছোট্ট নেংটি ইদুঁরের পিছু পিছু বিশাল হাতি থপ থপ করে হেঁটে যেতে থাকল।
বনের সব পশু সেটা দেখে অবাক হয়ে গেল। সবাই হাতিকে জিজ্ঞেস করল, “হাতি, কি হয়েছে?”
হাতি মুচকি হেসে বলল, “দেখছ না, ছোট্ট নেংটি ইদুঁর আমাকে ধরে নিয়ে যাচ্ছে।”
সবাই তখন হা করে তাকিয়ে রইল।

ছোট্ট নেংটি ইদুঁর হাতিকে নিয়ে বনের ধারে মাদার গাছের নিচে তার গর্তের কাছে এসে তার ভাই বোনদের ডেকে বলল, “আমি বলেছিলাম না হাতিকে ধরে আনব? এই দেখো, আমি হাতিকে ধরে এনেছি।”
তার ভাই বোনেরা গর্ত থেকে বের হয়ে এই বিশাল হাতিকে দেখে একেবারে ভিমরি খেয়ে গেল। ভয়ে তাদের হাত পা কাঁপতে লাগল, মাথা ঘুরতে থাকল, শরীর ঘামতে লাগল। তারা কী বলবে বুঝতে পারল না।
ছোট্ট নেংটি ইদুঁর বলল, “এখন তোমাদের বিশ্বাস হয়েছে যে আমার যেটা ইচ্ছা হয় আমি সেটাই করতে পারি?”
তার ভাই বোনেরা ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে বলল, “হ্যা, বিশ্বাস হয়েছে।”
“তাহলে কী আমি এখন হাতিকে ছেড়ে দিব? নাকি মাদার গাছের সাথে বেঁধে রাখব?”
তার ভাই বোনেরা তাড়াতাড়ি বলল, “ছেড়ে দাও, ছেড়ে দাও। এক্ষুনি ছেড়ে দাও।”
ছোট্ট নেংটি ইদুঁর তখন হাতির শুঁড়ের বাঁধনটা খুলে হাতিকে বলল, “ঠিক আছে হাতি তোমাকে ছেড়ে দিলাম। তুমি যাও।”
হাতি তার শুঁড় তুলে নেংটি ইদুঁরকে সেল্যুট দিয়ে বলল, “অনেক অনেক থ্যাংকু তোমাকে।”
তারপর সে থপ থপ করে হেঁটে চলে গেল।

ছোট্ট নেংটি ইদুঁরের ভাই বোনেরা তারপর আর কোনোদিন তাকে নিয়ে ঠাট্টা করতো না। এখন তারা তাকে দেখলে বলে:
আমাদের এই ছোট্ট নেংটি ইদুঁর ভাই
পারে না এমন কাজ পৃথিবীতে নাই!

আগস্ট ২০১৯