চেয়ো না সুনয়না আর চেয়ো না

চেয়ো না সুনয়না
আর চেয়ো না এ নয়ন পানে।
জানিতে নাইকো বাকি
সই ও আঁখি কী যাদু জানে॥

একে ঐ চাউনি বাঁকা
সুর্মা-আঁকা তায় ডাগর আঁখি।
বধিতে তায় কেন সাধ
যে মরেছে ঐ নয়ন বাণে।
মরেছে ঐ আঁখি-বাণে॥

কাননে হরিণ কাঁদে,
সলিল-ফাঁদে ঝুরছে শফরি,
বাঁকায়ে ভুরুর ধনু
ফুল-অতনু কুসুম-শর হানে॥

কুনাল কি পড়লো ধরা!
পীযূষ ভরা ঐ চাদো মুখে,
কাঁদিছে নার্গিসের ফুল
লাল কপোলের কমল-বাগানে।

জ্বলিছে দিবস রাতি
মোমের বাতি রূপের দেওয়ালি,
নিশিদিন তাই কি জ্বলি
পড়ছ গলি’ অঝোর নয়ানে॥

মিছে তুই কথার কাঁটায়
সুর বিঁধে হায় হার গাঁথিস কবি,
বিকিয়ে যায় রে মালা
এই নিরালা আঁখির দোকানে॥

[বাগেশ্রী-পিলু—কাহার্বা]