যুদ্ধ

চীন: ১৯৩৭-৩৮

  • জীবনানন্দ দাশ
  • কবিতা, যুদ্ধ

এখন গম্ভীর সূর্য চ'লে যায় মৃতবৎসা হস্তিনী'র মতো ভীম পাহাড়ের অই পারে মাছির ডানার মতো ক্ষীণ কলরোল পিছে রেখে (জনমাংসহীন হিমে পৃথিবীর তরে) জমি উপড়ায়ে ফেলে কুয়াশায় মিশে গেছে চাষা প্রাচীন লাঙ্গল তার মৃত্তিকার তরঙ্গের এক কোণে আছে চুরি হয়ে...বিস্তারিত

মৃত চীন-সৈনিক

  • জীবনানন্দ দাশ
  • কবিতা, যুদ্ধ

সমস্ত শরীর তার জড়ানো রয়েছে ফিট যুদ্ধের শোভায় যেন কেউ ঈশ্বরের চেয়ে কিছু কম গরিমায় তাহার প্রত্যঙ্গে আছে পরিপূর্ণ হয়ে সঞ্চারণ করিলেই উঠিবে সে জেগে- নীল আকাশের নিচে অনন্ত জলের নদী- প্রণয়ের চেয়ে দায়িত্ব বিশিষ্টতর ছিল তার? বিলোল বায়ুর চেয়ে...বিস্তারিত

প্রত্যাবর্তন

  • জীবনানন্দ দাশ
  • কবিতা, যুদ্ধ

চীনের সম্রাট যেন আমাকে হুকুম দিল বায়ুর ভিতর থেকে এসে "এখন এমন ছবি এঁকে দাও আমার দেয়ালে যাতে আমি গাঢ় নক্ষত্রের থেকে এই মূর্খ পৃথিবীতে পুনরায় নেমে এসে- এই প্রত্যাবর্তনের মূলে তোমাদের সকলের অগোচর ক্লান্ত অভিশাপ রয়ে গেছে- তবুও নির্দেশ...বিস্তারিত

সে কোন শতক এই জানি না

  • জীবনানন্দ দাশ
  • কবিতা, যুদ্ধ

সে কোন শতক এই জানি না কি- শতকের জীব? তবু এক গুণপনা ছড়ায়ে রয়েছে এই দেশে জাপানির বারুদের পথে ফলিয়াছে ভোর, চকিতে জেনেছে ভুল ক'রে আজ এই পৃথিবীতে এসে মনে হয় হৃদয়েরে চেয়ে আনে নিসর্গের ভোর এসে গেলে নগরীর আট-দশ...বিস্তারিত

১৯১৪-১৯৪১

  • জীবনানন্দ দাশ
  • কবিতা, যুদ্ধ

দুইটি বৃহৎ কুরুক্ষেত্র এই পৃথিবীর 'পরে আধো-অসমাপ্ত হয়ে আরেক যুদ্ধের কোলে মানুষের মনে মিশে আছে আজ এই বিকেলের আলোর ভিতরে একটি কৃষক তার হৃদয়ের বিমর্ষ স্পন্দনে দাঁড়ায়েছে মহাসূর্যাস্তের বিষম বলয়ের মুখোমুখি শববাহকের কাঁধে এক জন বুর্জোয়া'র মৃত্যু আসে যায় একটি...বিস্তারিত

কামাল পাশা

  • কাজী নজরুল ইসলাম
  • কবিতা, যুদ্ধ

[তখন শরৎ-সন্ধ্যা। আস্মানের আঙিনা তখন কার্বালা ময়দানের মতো খুনখারাবির রঙে রঙিন। সেদিনকার মহা-আহবে গ্রীক-সৈন্য সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত হইহা গিয়াছে। তাহাদের অধিকাংশ সৈন্যই রণস্থলে হত অবস্থায় পড়িয়া রহিয়াছে। বাকি সব প্রাণপণে পৃষ্ঠ প্রদর্শন করিতেছে। তুরস্কের জাতীয় সৈন্যদলের কাণ্ডারী বিশ্বত্রাস মহাবাহু কামাল-পাশা মহাহর্ষে...বিস্তারিত

রণ-ভেরী

  • কাজী নজরুল ইসলাম
  • কবিতা, যুদ্ধ

[গ্রীসের বিরুদ্ধে আঙ্গোরা-তুর্ক-গভর্ণমেন্ট যে যুদ্ধ চালাইতেছিলেন, সেই যুদ্ধে কামাল পাশার সাহায্যের জন্য ভারতবর্ষ হইতে দশ হাজার স্বেচ্ছা-সৈনিক প্রেরণের প্রস্তাব শুনিয়া লিখিত] ওরে আয়! ঐ মহা-সিন্ধুর পার হতে ঘন রণ-ভেরী শোনা যায়– ওরে আয়! ঐ ইস্লাম ডুবে যায়! যত শয়তান সারা...বিস্তারিত

মহানামন্

  • সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত
  • কবিতা, যুদ্ধ

(প্রথম হল্‌কা) "রাজা নেই ব'লে অরাজক নয় কপিলবাস্তু পুরী, সন্তাগাবের সন্তেরা আছে, বাজা ওর বাজা তুরী। নগর-জ্যেষ্ঠ শ্রীমহানামন্ আদেশ করেন সবে,- রাজদস্যুর এই দস্যুতা নিরোধ করিতে হবে। কোশল-ভূপতি প্রসেনজিতের তনয় পিতৃঘাতী- বৃদ্ধ পিতার রাজ্য হরিয়া দেমাকে উঠেছে মাতি; পর-ধন পর-রাজ্যের...বিস্তারিত

গিরিরাণী

  • সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত
  • কবিতা, যুদ্ধ

আধার ঘরে বরষ পরে উমা আমার আসে, চোখের জলে তবু এমন চোখ কেন গো ভাসে? শরৎ-চাঁদের অমল আলোয় হাসে উমার হাসি, জাগায় মনে উমার পরশ শিউলি-ফুলের রাশি; উমার পায়ের আভা দেখি সকাল-বেলার রোদে, দেখতে দেখতে সারা আকাশ নয়ন কেন মোদে!...বিস্তারিত

সৈনিকের গান

  • সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত
  • কবিতা, যুদ্ধ

(গ্রীস্) শড়্কির মুখে কর্ষণ করি আমরা এমন চাষা! কাতার নাহিক, কর্ত্তন করি খড়েগ ফসল খাসা! নিরস্ত্র করি শত্রু সকলে নিরস্ত হই তবে, পদতলে পড়ি' 'হুজুর' 'জনাব' বলি' তারা কাঁদে সবে। আপনার 'পরে আপনি কর্ত্তা কর্ত্তা আপন ঘরে, সাধ্য কি কেউ...বিস্তারিত